Home বাংলাদেশ ত্রিভুজ প্রেম ও মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে খুন হয়

ত্রিভুজ প্রেম ও মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে খুন হয়

29
0

 নিজস্ব সংবাদদাতা:নারী ঘটিত বিষয়ে ও মাদক ব্যবসা নিয়ে পূর্বশক্রতার জেরে পূর্বপরিকল্পিত খুন করা হয়েছে যশোর শহরের সিটি কলেজ পাড়ার মেহেদি হাসান সাগরকে। সাগর হত্যা মামলার চার্জশিটে তদন্ত কর্মকর্তা এ তথ্য জানিয়েছেন। আদালতে দেয়া চার্জশিটে ছয়জনকে অভিযুক্ত করা হয়েছে। অভিযুক্তরা হলেন, সিটি কলেজ বৌ বাজার এলাকার ওহিদুল ইসলামের ছেলে আবু হুরাইরা, একই এলাকার বারেকের ছেলে রাকিব, খুলনা দিঘলিয়া উপজেলার বারাকপুর গ্রামের বর্তমান বারান্দী মোল্যাপাড়া এলাকার তরিকুল ইসলামের ছেলে আশিকুল ইসলাম আশিক, সিটি কলেজ বৌবাজার এলাকার শহিদের ছেলে আলা আমিন, শামসুর রহমানের ছেলে মুরাদ ও জাহিদের স্ত্রী মোছাঃ মঞ্জুরা। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা সিআইডি পুলিশের উপ পুলিশ পরিদর্শক অনুপ কুমার দাশ তদন্ত শেষে আদালতে চার্জশিট জমাদেন। নিহত সাগর যশোর শহরের সিটি কলেজ পাড়ার বৌবাজার এলাকার জালাল হোসেনের ছেলে।
আদালত সূত্র জানায়, আসামি নদী নামের একটি মেয়ের সাথে সাগর, হুরায়রার উভয়ের প্রেমের সম্পর্ক ছিলো। যা নিয়ে দুজনের মধ্যে শক্রতা চলছিলো। এছাড়াও আরেক আসামি মুরাদ মাদকের সাথে সংশ্লিষ্টতা ছিলো যা নিয়ে সাগরের পরিবারের সাথে শক্রতা ছিলো। এসব বিষয়ে প্রতিশোধ নিতেই আসামিরা পূর্ব মাদক ব্যবসাকে কেন্দ্র করে পূর্ব শক্রতা ও কেন্দ্রকরে আসামিরা সাগরকে পূর্বপরিকল্পিত ভাবে হত্যা করে। উল্লেখ্য, ২০১৮ সালের ২৮ ফেব্রুয়ারী সন্ধারপর সাগর মনিহার সিনেমা হলের পাশে বাবার চায়ের দোকানে কাজ করছিলো। এমন সময় হুরায়রা এসে সাগরকে ডেকে নিয়ে যায়। পরে অন্য আসামিরা একত্রিত হয়ে বৌবাজর কলোনী জামে মসজিদের পেছনে নিয়ে ছরিকাঘাত করে আসামিরা পালিয়ে যায়। পরে স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে যশোর ২৫০ শয্যা বিশিষ্ট মেডিকেল কলেজ হাসপাতারে ভর্তি করে। অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় তাকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় পহেলা মার্চ সাগরের মৃত্যু হয়।এ ঘটনায় নিহতের ভাই বিল্লাল হোসেন বাদী হয়ে উপরে উল্লেখিত আসামিদের নামে কোতোয়ালী থানায় মামলা করেন। মামলাটি প্রথমে কোতোয়ালী থানার ইন্সপেক্টর আলমগীর হোসেন মামলাটি তদন্ত শুরু করেন। পরে মামলার তদন্তের দায়িত্বপায় সিআইডি পুলিশ। পরে তথ্য প্রযুক্তির সহযোগীতায়ঘটনার ১১ মাসপর গত বছরের ২১ জানুয়ারী মামলার প্রধান আসামি আবু হুরায়রাকে মাগুরা জেলার নান্দুয়ালী এলাকা থেকে আটক করে। পরে তিনি হত্যার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন। একে একে অন্য আসামিদের সংশ্লিষ্টতাও বেরিয়ে আসে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here